রাসূল (স.) এর শ্রেষ্ঠ সীরাত গ্রন্থ: আর রাহীকুল মাখতূম । আল্লামা সফিউর রহমান মুবারকপুরী (রহ.) , মীযান বিন হারুন (অনুবাদক) । হার্ডকভার

  • Fast Shipping

    Receive products in amazing time
  • Easy Returns

    Return policy that lets you shop at ease
  • Always Authentic

    We only sell 100% authentic products
  • Secure Shopping

    Your data is always protected

৳ 350.00 ৳ 600.00

Highlights

রাসূল (স.) এর শ্রেষ্ঠ সীরাত গ্রন্থ: আর রাহীকুল মাখতূম (হার্ডকভার)

আর রাহীকুল মাখতূম। বিশ্বব্যাপী অন্যতম প্রসিদ্ধ সীরাহ। লিখেছেন মাওলানা সফিউর রহমান মুবারকপুরী রহিমাহুল্লাহ। অসাধারণ এ সীরাহ গ্রন্থটি তিনি রচনা করেন ১৯৭৬ সালে। সে বছর রবিউল আউয়াল মাসে পাকিস্তানে অনুষ্ঠিত রাবেতায়ে আলমে ইসলামির সীরাতুন্নাবী সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সম্মেলন থেকে একটি আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতার ঘোষণা দেওয়া হয়। প্রতিযোগিতার বিষয় ছিল – ইতিহাস ঘেঁটে রাসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনের ওপর একটি প্রামাণ্য পর্যালোচনা উপস্থাপন করা। প্রতিযোগিতায় ১১৮২টি পাণ্ডুলিপি জমা হয়। এতো এতো পাণ্ডুলিপির মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করে মাওলানা সফিউর রহমান মুবারকপুরীর পাণ্ডুলিপি, যা আজ ” আর রাহীকুল মাখতূম” নামে মলাটবদ্ধ হয়েছে।

বই: রাসূল (স.) এর শ্রেষ্ঠ সীরাত গ্রন্থ: আর রাহীকুল মাখতূম
লেখক : আল্লামা সফিউর রহমান মুবারকপুরী (রহ.)
অনুবাদ: মীযান বিন হারুন
প্রকাশনী: দারুল হুদা কুতুবখানা
পৃষ্ঠা: ৮০০

Description

◼ গ্রন্থ : আর রাহীকুল মাখতূম
◼ গ্রন্থকার : মাওলানা সফিউর রহমান
________________________________
• প্রাককথন :
মানুষ অনুসরণ প্রিয়। কাউকে না কাউকে সে তার জীবনাদর্শ হিসেবে গ্রহণ করবেই। আচ্ছা, অনুসরণীয় আদর্শ হিসেবে শ্রেষ্ঠ কে? কার অনুসরণে আমরা পেতে পারি ইহকালীন শান্তি? কাকে অনুসরণ করলে আমরা পরকালেও পেতে পারি মুক্তি?
“অবশ্যই তোমাদের প্রত্যেকের জন্য রাসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মধ্যেই রয়েছে সর্বোত্তম আদর্শ।” (সূরা আহযাব : ২১)

সুতরাং মানবতার মুক্তির দূত সম্পর্কে আমাদের জানতে হবে, তাকে চিনতে হবে। তাই তো তাঁর জীবনী পাঠ করা আমাদের জন্য একান্ত জরুরি। আল কুরআনই হচ্ছে তাঁর সর্বশ্রেষ্ঠ জীবনীগ্রন্থ। অতঃপর আল হাদীস। এছাড়াও তাকে নিয়ে লেখা হয়েছে হাজার হাজার পৃষ্ঠা, রচিত হয়েছে অসংখ্য সীরাহ।

• সীরাহ কী ও কেন :
মূলত মহানবী হযরত মুহাম্মাদ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনীর ওপর রচিত গ্রন্থকেই পারিভাষিক অর্থে সীরাহ বলা হয়। আমাদের জীবনে রাসূলুল্লাহর সীরাহ পাঠের গুরুত্ব, বেঁচে থাকতে অক্সিজেনের গুরুত্বের সমতূল্য বলা যেতেই পারে। রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে সঠিকভাবে অনুসরণ করতে গেলে অবশ্যই তাঁর জীবনাচার আমাদের জানতে হবে। আর তাই পড়তে হবে সীরাহ।

• আর রাহীকুল মাখতূমের পটভূমি :
আর রাহীকুল মাখতূম। বিশ্বব্যাপী অন্যতম প্রসিদ্ধ সীরাহ। লিখেছেন মাওলানা সফিউর রহমান মুবারকপুরী রহিমাহুল্লাহ। অসাধারণ এ সীরাহ গ্রন্থটি তিনি রচনা করেন ১৯৭৬ সালে। সে বছর রবিউল আউয়াল মাসে পাকিস্তানে অনুষ্ঠিত রাবেতায়ে আলমে ইসলামির সীরাতুন্নাবী সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সম্মেলন থেকে একটি আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতার ঘোষণা দেওয়া হয়। প্রতিযোগিতার বিষয় ছিল – ইতিহাস ঘেঁটে রাসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনের ওপর একটি প্রামাণ্য পর্যালোচনা উপস্থাপন করা। প্রতিযোগিতায় ১১৮২টি পাণ্ডুলিপি জমা হয়। এতো এতো পাণ্ডুলিপির মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করে মাওলানা সফিউর রহমান মুবারকপুরীর পাণ্ডুলিপি, যা আজ ” আর রাহীকুল মাখতূম” নামে মলাটবদ্ধ হয়েছে।

• সীরাহ হিসেবে আর রাহীকুল মাখতূমের অসাধারণত্ব :
সীরাহ হিসেবে আর রাহীকুল মাখতূম অনন্য। এর রয়েছে এমন কিছু স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য, যার কারণে অন্যসব সীরাহ গ্রন্থের তুলনায় আর রাহীকুল মাখতূম পেয়েছে বহুল জনপ্রিয়তা। এখানে সংক্ষেপে কিছু বৈশিষ্ট্য উল্লেখ করা যেতে পারে।

• সীরাহ হিসেবে গ্রন্থটি অতিদীর্ঘও নয়, খুব সংক্ষিপ্তও নয়, বরং এ দুয়ের মাঝামাঝি। তাই যেকোনো পাঠক, বিশেষ করে নবীন পাঠকেরা পড়তে গিয়ে মনোযোগ হারিয়ে ফেলবেন না।

• সংক্ষিপ্ত হওয়ার পরেও প্রয়োজনীয় বা গুরুত্বপূর্ণ তথ্যাদির কমতি নেই এতে। বরং বেশ তথ্যসমৃদ্ধ হওয়ায় এ বইটি নিজেই আরেকটি রেফারেন্স বই হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে।

• এই একটি সীরাহ রচনা করতে গিয়ে লেখক সাহায্য নিয়েছেন প্রায় ৯১টি গ্রন্থের! সুতরাং বইটির বিশুদ্ধতা নিয়ে আলাপ করা নিষ্প্রয়োজন।

• স্বাভাবিকভাবেই রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনীতে রয়েছে এক মহনীয় টান। অত্র গ্রন্থটির বর্ণনার ধারাবাহিকতা এবং প্রাঞ্জলতা যেকাউকেই আরো আকর্ষিত করবে এর শেষ অবধি পড়ার জন্য।

• বইটিতে কেবল রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনীই মলাটবদ্ধ করা হয়নি, বরং প্রাক-ইসলামি যুগে আরবের প্রাকৃতিক, জাতিগত, রাজনৈতিক, সামাজিক, ধর্মীয় ইত্যাদি অবস্থাও তুলে ধরা হয়েছে। অতঃপর ক্রমান্বয়ে রাসূল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নবুওয়াত লাভ, মাক্কী জীবন, হিজরত, মাদানী জীবন, জিহাদি জীবন, মক্কা বিজয়, ইন্তেকাল – সবকিছুই বর্ণনা করা হয়েছে।

• এছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ ঘটনার সাথে সম্পর্কিত স্থানের মানচিত্রও যোগ করা হয়েছে গ্রন্থটিতে। এতে মূল ঘটনা বুঝতে বেশ সহজ হয়েছে।

• পাঠ মূল্যায়ন : ভালো লাগা – মন্দ লাগা :
সীরাহ পাঠের অনুভূতি কেমন হয়, তা আসলে লিখে বোঝানো সম্ভব নয়৷ রাসূলুল্লাহ সল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনী পড়তে গেলে কখনো আপনাকে কাঁদতে হবে, কখনো আপনার ঠোঁটের কোণে ফুটে ওঠবে হাসির রেখা, আপনার অন্তরাত্মায় লাগবে প্রবল ঝাঁকুনি, বৃদ্ধি পাবে ঈমান। সীরাহ হিসেবে “আর রাহীকুল মাখতূম” এর প্রভাবও এর ব্যাতিক্রম নয়।

আমার হাতের কপিটি মূলত দারুল হুদা কুতুবখানা থেকে প্রকাশিত মূল বইয়ের বঙ্গানুবাদ। অনুবাদ বেশ ঝরঝরে। ভাষায় মাধুর্য আছে, আছে আবেগের সফল-মিশ্রণ। দাম অনুযায়ী পৃষ্ঠার মানও তেমন খারাপ না। প্রচ্ছদটাও মোটের ওপর সুন্দরই বলা যায়। সীরাহ হিসেবে “আর রাহীকুল মাখতূম” যেমন সফল, অনুবাদ গ্রন্থ হিসেবে দারুল হুদার অনুবাদটিও প্রশংসার দাবিদার।

তবে দারুল হুদার এ কপিটির দুই-এক জায়গায় আমার কাছে একটু অশোভনীয় লেগেছে। যেমন :
• বইয়ের কভারে লেখকের নাম লেখা আছে এভাবে – ‘মুবারকপূরী’। অথচ ‘পূরী’ শব্দাংশের ‘প’ এর নিচে ‘হ্রস্ব-উ কার’ হবে। বইয়ের কভারেই এ রকমের ভুল নিঃসন্দেহে অত্যন্ত দৃষ্টিকটু।

• যদিও বইয়ের কভারে ‘মুবারকপূরী’ আছে, তবে ভেতরে লেখা হয়েছে ‘মোবারকপুরী’। আবার এক জায়গায় আছে ‘ইসলামী’, আরেক জায়গায় ‘ইসলামি’। একই বইয়ে একই শব্দের বানানে বৈসাদৃশ্য নিশ্চয় বইয়ের মান কমিয়ে দেয়।

• গ্রন্থকার সম্পর্কে দু’কলম :
মাওলানা সফিউর রহমান মুবারকপুরী রহিমাহুল্লাহ। জন্ম গ্রহণ করেছেন ১৯৪৩ সালে ভারতের উত্তর প্রদেশের মুবারকপুরের হুসাইনাবাদ গ্রামে। এ মহান আলেমে দ্বীন প্রাতিষ্ঠানিকভাবে ছাত্রত্ব শেষ করার কিছুকাল আগেই রচনা করেন “আর রাহীকুল মাখতূম” এর মতো কালজয়ী সীরাহ। এছাড়াও রচনা করেছেন আরো ত্রিশোর্ধ্ব কিতাব। কর্মজীবনে দীর্ঘ সময় কাটিয়েছেন মদীনা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করে। ২০০৬ সালের ডিসেম্বরে এ মহান মনীষী ইন্তেকাল করেন।

0.0/5
0 reviews
0
0
0
0
0

There are no reviews yet.

Be the first to review “রাসূল (স.) এর শ্রেষ্ঠ সীরাত গ্রন্থ: আর রাহীকুল মাখতূম । আল্লামা সফিউর রহমান মুবারকপুরী (রহ.) , মীযান বিন হারুন (অনুবাদক) । হার্ডকভার”